অবশেষে সাংবাদিকের ওপর হামলাকারী নাবিল গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিনিধি

সরকারি চাউল চুরির নিউজ করায়  সাংবাদিক সাগর চৌধুরীকে গুরুতর আহত করে বোরহানউদ্দিন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জসিম হায়দারের সন্ত্রাসী ছেলে নাবিল।

সাগর চৌধুরী স্থানীয় অনলাইন পোর্টাল ডব্লিউ৩৬০ডিগ্রির সম্পাদক ও প্রকাশক।

এ ঘটনায়, ভোলার সাংবাদিক এবং অনলাইন এডিটরস কাউন্সিল ও বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স সোসাইটির পক্ষে  প্রতিদিন বাংলাদেশ পত্রিকার উপদেষ্টা আবুল কালাম আজাদ ও মাহমুদ হোসেন মোয়াজ্জেম উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সেই সঙ্গে হামলাকারী নাবিলকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন তারা।

জানা গেছে, করোনাভাইরাসজনিত কারণে ঘরে থাকার সময়ে জেলেদের নামে বরাদ্দকৃত চাল রাতের আঁধারে চুরি করে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে বোরহানউদ্দিন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বড় মানিকা ইউপি চেয়ারম্যান জসিম হায়দারের ছেলে নাবিলের বিরুদ্ধে। বিশ্বস্ত সূত্রে ঘটনাটি নিশ্চিত হয়ে এর তথ্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে সাংবাদিক সাগর চৌধুরী অবহিত করেন। এ খবর পেয়ে ক্ষিপ্ত হয় বোরহানউদ্দিন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জসিম হায়দারের ছেলে নাবিল। পরে ভোলার বোরহানউদ্দিনে সাংবাদিক সাগর চৌধুরীকে ধরে এনে মোবাইল চোর ও ছিনতাইয়ের অপবাদ দিয়ে মারধর করে নাবিল। এ ঘটনার ভিডিও ধারণ করে তা আবার ফেসবুকে লাইভও করে সে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে ভিডিও ভাইরাল হওয়ায় পুলিশ এই সন্ত্রসীকে গ্রেপ্তার করেছে। সাংবাদিক সমাজ সরকার প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান।ভোলার বোরহানউদ্দিনে সাংবাদিক সাগরকে ছিনতাইকারী বলে মারধর করা ছাত্রলীগ নেতা নাবিলকে গ্রেফতার করেছে বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশ।

বুধবার (১ এপ্রিল) দুপুরে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে রাত দুইটায় সাংবাদিক সাগর চৌধুরী অত্র থানায় নাবিলসহ পাঁচজনের নামে মামলা দায়ের করেন। এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বোরহানউদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক।

এর আগে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজের একাংশ হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানিয়ে মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) বিবৃতি দিয়েছেন। ডিইউজের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, চাল চুরির অভিযোগ করায় ভোলায় সাংবাদিক সাগর চৌধুরীর ওপর মধ্যযুগীয় কায়দায় বর্বরতা চালিয়েছে বোরহানউদ্দিন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বড় মানিকা ইউপি চেয়ারম্যান জসিম হায়দারের ছেলে নাবিল। ক্ষোভ মেটাতে ওই সাংবাদিককে মোবাইল চোর ও ছিনতাইকারী অপবাদ দিয়ে পেটানো হয়। পরে নির্যতনের ঘটনার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এরপর ওই সাংবাদিকের বক্তব্যের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) সকালে উপজেলা সদরের রাজমনি সিনেমা হলের সামনে নির্যাতনের এ ঘটনা ঘটে।

ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে সাগর চৌধুরী বলেন, ‌’আজ ‌সকাল ৬টায় নাবিল আমাকে ফোন করে বলে আপনার সঙ্গে জরুরি কথা আছে একটু আসেন। তখন আমি বলি, এত সকালে আমি কীভাবে আসবো। তরপরও আমি সেখানে গেলে, সিনেমা হলের দোতলায় আমাকে ডেকে নেয় সে। আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করা হয়। তখন আমি দোতলা থেকে নিচের দিকে নেমে আসতে চাই। তখন সে পেছন থেকে আমার কলার চেপে ধরে এবং আঘাত করে। আমার চোখে আঘাত করে চোখ নষ্ট করে দেওয়ার জন্য। মাথার অনেক জায়গায় আঘাত করে। মাথাটা ফুলে গেছে। আমাকে মেরে ফেলার জন্য দুহাত দিয়ে গলা চেপে ধরে। এছাড়া শরীরের অনেক জায়গায় আঘাত করে সে।’

আরো পড়ুন