শার্শায় স্কুল ছাত্রী অপহরপের অভিযোগে এক যুবক আটক।

শার্শা প্রতিনিধি :যশোরের বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশের অভিযানে মাধ্যমিক পড়ুয়া এক স্কুল ছাত্রী অপহরণের দ্বায়ে ইমন হোসেন প্রান্ত (২২) নামের এক যুবক আটক হয়েছে। সে বেনাপোল পোর্টথানাধীন নামাজগ্রাম পশ্চিমপাড়া এলাকার বাসিন্দা নাছিমা বেগম এর ছেলে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বেনাপোল পোর্টথানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ সদস্যরা তাহাকে আটক করেন।

বেনাপোল পোর্টথানা সুত্রে জানা যায়,শার্শা উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের ধান্যখোলা গ্রামের মোঃ জাবের আলীর কন্যা ও ধান্যখোলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দশম শ্রেনী পড়ুয়া ছাত্রীকে আটককৃত ইমন ও তার সহযোগীরা গত ৬ই জুন সন্ধ্যায় বাহাদুরপুর গ্রাম হতে একটি সিলভার ও হলুদ রং এর প্রাইভেট কার যোগে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। পরদিন ভূক্তভোগীর পিতা থানায় হাজির হয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। এর ভিত্তিতে বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশ ভিকটিম উদ্ধার চেষ্ঠায় অভিযানে নামেন। ৮জুন সন্ধ্যায় পুলিশের সফল অভিযানে অপহৃত স্কুল ছাত্রী উদ্ধার হয়। এ সময় মূল অপহরন কারী প্রান্তকে আটক করতে সক্ষম হয় বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশ। অপহরণ ঘটনায় আটকৃতের বিরুদ্ধে ৭২ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা রুজু হয়েছে। বেনাপোল পোর্টথানার চলমান মামলা নং- ৯/২২৩ ও তাং-৮/৬/২০২১ই।

বেনাপোল পোর্টথানার এস আই ও মামলার তদন্তকর্মকর্তা মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান স্কুল ছাত্রী উদ্ধার ও আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান ,আসামী প্রান্ত ও উদ্ধার হওয়া স্কুল ছাত্রীকে বিজ্ঞআদালতে হাজির পূর্বক ভিকটিমের ২২ধারায় জবানবন্দী রেকর্ড হয়েছে। বিচারকের আদেশ মোতাবেক উদ্ধার হওয়া স্কুল ছাত্রীকে সেফকাস্টরী ও আসামী কে জেলহাজতে প্রেরন করা হয়েছে। অপহরন কাজে ব্যবহৃত প্রাইভেটকার ও অন্যান্য সহযোগী আটকের চেষ্ঠা চলছে।

এলাকার আইন-শৃক্ষলা রক্ষা ও অপরাধ দমনে বেনাপোল পোর্টথানাপুলিশের ভূমিকা প্রশংসনীয়। বেনাপোল পোর্টথানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার আন্তরিক প্রচেষ্ঠায়, দ্রুত স্কুল ছাত্রী উদ্ধার ঘটনায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন এলাকাটির অভিভাবক মহল।

আরো পড়ুন