লালমোহনে ৩৩৩ তে খাদ্য সহায়তা চেয়ে খাদ্যের বদলে কপালে জুটল পিটুনি

এ .এইচ.রিপন লালমোহন প্রতিনিধিঃ

ভোলার লালমোহনে ৩৩৩ তে খাদ্য সহায়তা চেয়ে সন্ত্রাসী হামালার স্বীকার হয়েছেন ফারুক নামের একজন। ঘটনার বিবরনে জানা যায়, মহামারী করোনাতে অভাব অনটন ও খাদ্য সংকটে ছিল লালমোহন উপজেলার লর্ডহাডিঞ্জ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ফাতেমাবাদ এলাকার ফারুক। ফারুকের কষ্ট দেখে প্রতিবেশী আলমের মেয়ে রুমা গত শুক্রবার (২৫ জুন) ফারুকের জন্য ৩৩৩ কে খাদ্য সহায়তা চেয়ে মোবাইল করে এবং ফারুকের পূর্ণ ঠিকানা প্রদান করে। এরপর ঐদিন বিকালে ফারুককে ত্রাণ দেয়া হবে বলে এলাকার ছালাউদ্দিন দালাল ও হায়দার মেম্বার ফারুককে ইউনিয়ন পরিষদে আসতে বলে। ফারুক ত্রাণের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে যায়। ইউনিয়ন পরিষদে যাওয়ার পর ইউপি চেয়ারম্যানসহ অনান্যরা ফারুককে কেন ৩৩৩ তে খাদ্য সহায়তা চেয়ে মোবাইল করেছে জানতে চায় এবং তাকে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখায়। লালমোহন উপজেলার ইউএনও নাকি বলেছে ৩৩৩ তে রিং করার জন্য তাকে জেলখানায় পাঠানো হবে। ফারুক ভয় পেয়ে সে মোবাইল করেনি এবং আলমের মেয়ে রুমা ফোন করেছে জানায়। পরে আলম ঢাকা থাকার কারনে তার মেয়ে রুমা ও স্ত্রী কে ছালাউদ্দিন দালাল ও হায়দার মেম্বার ত্রাণ নেয়ার জন্য ইউপিতে আসতে বলে। তারা প্রথমে যেতে চাইনি পরে তাদের বারবার অনুরোধের কারনে আলমের স্ত্রী ইউনিয়ন পরিষদে আসে। আলমের স্ত্রী ইউনিয়ন পরিষদে আসার পরপরই তাকে সকলে মিলে কেন ৩৩৩ ত্রাণের জন্য রিং করেছে জানতে চায় এবং কে রিং করতে বলেছে জানতে চায়। একপর্যায়ে তাদেরকে অপমান অপধস্ত ও বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বিদায় দেয়া হয়।

এ প্রতিনিধিকে ফারুক প্রচন্ড ভয়ে ভয়ে জানান আমি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নেমে বাড়ীতে আসার পথে হঠাৎ ৮/১০ লোক কোন কথা না বলে আমাকে এলোপাথারী মারতে থাকে। আমি চিৎকার করলেও কেউ আসেনি। একপর্যায়ে আমাকে মেরে তারা চলে যায়। পরে আমি ভাড়া করা মোটরসাইকেলে বাড়ীতে চলে আসি। আমি এখনও প্রচন্ড অসুস্থ। টাকার অভাবে ভালো চিকিৎসা করাতে না পেরে বাজারের ডাক্তারের কাছ থেকে ঔষদ খাচ্ছি।

এদিকে ফারুকের বাড়ীতে সাংবাদিক এসেছে একথা শুনে ছালাউদ্দিন দালাল সেখানে গিয়ে এ প্রতিনিধি কে বলল ফারুক ৩৩৩ তে রিং করে অন্যায় করেছে। আমরা একে সকল ধরনের সুযোগ দিচ্ছি। তারপরও কেন সে ৩৩৩ তে রিং করবে। অভাবে থাকলে সে আমাদের কে বলবে। সে ঢাকাতে বলেছে, ঢাকা থেকে ইউএনও স্যারকে বলেছে, ইউএনও স্যার চেয়ারম্যানকে বলেছে, চেয়ারম্যান আমাদেরকে বলেছে।

গরীব মানুষের জন্য ৩৩৩ তে খাদ্য সহায়তা চাওয়া অন্যায় কিনা জিজ্ঞাসা করলে লালমোহন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল নোমান বলেন, ৩৩৩ চালু করা হয়েছে যারা খাদ্যের অভাবে রয়েছে তাদেরকে সহায়তা করার জন্য। আমার কাছে ৩৩৩ থেকে একটি এসএমএস আসার পর আমি চেয়ারম্যান এর কাছে ফরওয়ার্ড করে দিয়ে তার সম্পর্কে জেনে তাকে সহায়তা করার জন্য চেয়ারম্যানকে বলি। ত্রাণের কথা বলে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে মারা হয়েছে এ বিষয়টি আমি জানিনা এবং এই মাত্র অবগত হলাম। ত্রাণের কথা বলে নিয়ে কাউকে মারলে এটা অন্যায় করেছে। যাহা মোটেই কাম্য নহে। ফারুক নামের লোকটিকে ত্রাণ না দিয়ে উল্টো তাকে মারা হয়েছে অভিযোগ করলে বিষয়টি খতিয়ে দেখে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরো পড়ুন