যশোরে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন সনাক্ত ২৫০ ও মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের

স্বীকৃতি বিশ্বাস, যশোর:-
সীমান্তবর্তী যশোর জেলা করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আঘাতে অনেকটাই বিপর্যস্ত। প্রতিদিন করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলছে। করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে কয়েক সপ্তাহ যাবত লকডাউনসহ নানাবিধ বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে কিন্তু করোনায় সংক্রমণ ও মৃত্যু কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না। করোনার সংক্রমণ যশোর জেলার মধ্যে যশোর সদরেই তুলনামূলক বিশ্লষণে অন্যান্য উপজেলার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি ফলে যশোর জেনারেল হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা পর্যাপ্ত শয্যার চেয়েও বেশি। এই অধিক সংখ্যক রোগীর চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে সম্মূখসারীর অপর্যাপ্ত ডাক্তার ও নার্সরা দিনরাত হিমসিম খাচ্ছেন। অন্যদিকে অক্সিজেনের সরবরাহ কম থাকায় চিকিৎসাধীন রোগীরা অক্সিজেন সংকটে ভুগছেন।

আজ ৩ জুলাই -২০২১ রোজ শনিবার যশোর জেনারেল হাসপাতালের আরএমও ও সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা ও করোনার উপসর্গ নিয়ে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৮ জন করোনা রোগী ছিলেন এবং বাকি ৬ জনের শরীরে করোনার উপসর্গ ছিল।

সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা আরও বলেন, গত ২৪ ঘন্টায় যশোর জেলার ৭১৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৫০ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পরিলক্ষিত হয়েছে। তথ্য বিশ্লষণে দেখা যায় সংক্রমণের হার ৩৪.৯২ শতাংশ।

যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটের ৯৯ শয্যার বিপরীতে বর্তমানে ভর্তি আছেন ২০২ জন যা শয্যা সংখ্যার দ্বিগুণেরও বেশি। এপর্যন্ত সনাক্ত হয়েছে ১৩ হাজার ৩৭ জন, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭ হাজার ৪ শত ৬৯ জন।করোনা পজেটিভ রোগী মারা গেছেন ১৬২ জন।

গত ২৪ ঘন্টায় করোনা সনাক্ত ২৫০ জনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১৬৩ জন রোগী যশোর সদরের।এছাড়া অভয়নগরে ২২ জন, শার্শায় ১৮ জন, চৌগাছায় ১৬ জন,মনিরামপুরে ১২ জন, ঝিকরগাছায় ১১ জন,কেশবপুরে ৬ জন ও বাঘারপাড়ায় ২ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পরিলক্ষিত হয়েছে।

আরো পড়ুন