যশোরে ঈদে আসছে ‘দেশের বড় গরু’, দাম চেয়েছে ২২ লক্ষ !

যশোর প্রতিনিধি :- কালো পাহাড়  নামে এক বিশাল আকৃতির কোরবানির গরু দেখার জন্য অনেকেই এখন ভিড় করছে মণিরামপুর উপজেলার আলিপুর গ্রামের বাবু গঙ্গাধর বিশ্বাসের খামারে।  বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ক্রেতা ও দর্শনার্থীরা আসছেন গরু দেখার জন্য।
এই খামারে এবারের ঈদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে কালো পাহাড় নামের এই গরুটি। আশানুরূপ দাম পেলে বিক্রি করবেন খামারের এই গরুটি।
চাকরি  জীবনের পাশাপাশি নিজ উদ্যোগে গরুর খামার গড়ে তোলেন যশোর জেলার মণিরামপুর উপজেলার কুলটিয়া ইউনিয়নের  আলিপুর  গ্রামের গঙ্গাধর।
গঙ্গাধর বিশ্বাস জানান, আমার এই গরুটি অনলাইনে কেনার জন্য যোগাযোগ করতে হবে 01714836308 এই নাম্বার। 
আনুমানিক  ২০১০ সাল থেকে গাভী গরু ও ছাগল দিয়ে খামারের যাত্রা শুরু করলেও ২০১৫ সাল থেকে বাণিজ্যিকভাবে ষাঁড় গরু লালন-পালন শুরু করেন। অর্থনৈতিকভাবে গঙ্গা এখন স্বাবলম্বী।
প্রথম দিকে বাণিজ্যিকভাবে পরিকল্পনা না থাকলেও ২০১৫ সাল থেকে বাণিজ্যিকভাবে ষাঁড় গরুর খামার গড়ে তোলেন। ভালো খাবার আর ভালো জাতের গরু খামারে এনে লালন-পালন করে ঈদের সময় বিক্রি করে থাকেন।
এবার ঈদের জন্য প্রায় ২০/২২ লক্ষ টাকায় এই গরুটি বিক্রি হবে বলে আশা করেন।  বেশ কিছু গরু তার খামারে রয়েছে । বর্তমানে প্রায় ১০টি গরু রয়েছে তার খামারে।
খামারের বিশাল আকৃতির  একটি ষাঁড় গরু যশোর জেলায় বেশ চমক সৃষ্টি করেছে। বিশাল আকৃতির এই গরুটি স্কেলের ওজনে প্রায় ১ হাজার ৪০০ কেজি ।
খামারি বাবু গঙ্গাধর বিশ্বাসের দাবি, এবারের ঈদে এটাই জেলা এবং দেশের মধ্যে অন্যতম বড় আকৃতির গরু হবে।
গরুটির গায়ের রং  কালো তাই তার নাম রাখা হয় কালো পাহাড় । ২০/২২ লাখ টাকা বিক্রি হবে বলে আশা করেন ।
জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা  জানান, কোরবানির পশু প্রস্তুত রয়েছে। গত বছরের মত করোনা পরিস্থিতির কারণে এবারও অনলাইনের মাধ্যমে কোরবানির পশু বিক্রির জন্য খামারিদের প্রস্তুত করা হচ্ছে। এবারও জেলাতে বেশ কিছু বিশাল আকৃতির কোরবানির পশু তৈরি করেছে স্থানীয় খামারিরা। তবে করোনাকালে অনলাইনে কোরবানির পশু বিক্রির কথা জানালেন তিনি।
আরো পড়ুন