মণিরামপুরে মায়ের দু’চোঁখ উপড়ে ফেলা চেষ্টা ঘটনায় কুলাঙ্গার ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

মণিরামপুর(যশোর)প্রতিনিধি ।। মণিরামপুরে সম্পত্তির লোভে মাকে মারপিটের পর আঙ্গুল ঢুকিয়ে দুই চোঁখ উপড়ে ফেলা চেষ্টার ঘটনায় অবেশেষে কুলাঙ্গার ছেলে মেহেদী হাসান টিটোর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। মা হাসিনা খাতুন বাদি হয়ে সোমবার সকালে থানায় মামলাটি দায়ের করেন। তবে পুলিশ এখনও তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

জানাযায়, উপজেলার গোপালপুর গ্রামের মৃত আবদুল খালেক দফাদার ছোট ছেলে মেহেদী হাসান টিটো বসতবাড়ির সব জমি দাবি করেন মায়ের কাছে। কিন্তু মা হাসিনা খাতুন ছোট ছেলে টিটোকে আট শতক জমি দিতে রাজি হন। মুলত: এ নিয়েই টিটো তার মায়ের উপর ক্ষিপ্ত হয়। গত বৃহস্পতিবার রাত আটটার দিকে বাড়িতে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে টিটো তার মায়ের উপর হামলা চালিয়ে মারপিট করে। এক পর্যায়ে টিটো আঙ্গুল ঢুকিয়ে তার মায়ের দুই চোঁখ উপড়ে ফেলার চেষ্টা করে। এতে মা রক্তাক্ত যখম হন। এ সময় মায়ের চিৎকারে আশপাশের লোকজন আসলে সে পালিয়ে যায়। পরে মাকে উদ্ধারের পর প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ওই রাতেই মাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
চিকিৎসার পর কিছুটা উন্নতি হলে মা হাসিনা খাতুন সোমবার সকালে মনিরামপুর থানায় কুলাঙ্গার ছোট ছেলে টিটোর বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই প্রসেনজিত কুমার জানান, ইতিমধ্যে টিটোকে গ্রেফতারের জন্য এলাকায় বেশ কয়েকবার অভিযান চালানো হয়েছে। কিন্তু পালিয়ে যাওয়ায় তাকে প্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। ওসি(সার্বিক)রফিকুল ইসলাম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, যেকোন মূল্যে তাকে(টিটো) গ্রেফতার করে বিচারের মুখোমুখি করা হবে। উল্লেখ্য ইতিপূর্বে মেহেদী হাসান টিটো তার মাকে কয়েকবার মারপিট করে এবং হত্যারও হুমকি দেয়। ফলে উপায়ন্ত না পেয়ে মা বাদি হয়ে টিটোর বিরুদ্ধে থানা এবং আদালতে মোট তিনটি মামলা করেন।এ নিয়ে খানপুর ইউপি চেয়ারম্যান গাজী মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে কয়েকদফা শালিসও হয়।

আরো পড়ুন