মণিরামপুরে প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্যের সব অনুষ্ঠান বয়কটের সিদ্ধান্ত সাংবাদিকদের

মণিরামপুর(যশোর)প্রতিনিধি : যশোরের মণিরামপুরে উন্নয়ন মেলায় সাংবাদিকদের নিয়ে কটুক্তি করার অভিযোগে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এবং সহকারি কমিশনার(ভূমি) পলাশ দেবনাথের সকল অনুষ্ঠান বয়কট করার ঘোষনা দেওয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে মণিরামপুর প্রেসক্লাবের জরুরী সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে। প্রেসক্লাবের সভাপতি ফারুত আহম্মদ এবং সাধারন সম্পাদক মোতাহার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মোতাহার হোসেন জানান, উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গত ২৭ এবং ২৮ মার্চ উপজেলা পরিষদ চত্বরে দুইদিন ব্যাপী উন্নয়ন মেলার আয়োজন করা হয়। ওই মেলায় সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের পাশাপাশি উপজেলা প্রশাসন মণিরামপুর প্রেসক্লাবের নামে একটি ষ্টল বরাদ্দ করেন।

সে মোতাবেক সাংবাদিকরা ষ্টলে উপস্থিত থাকেন। ২৮ মার্চ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসানের সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য। প্রধান অতিথির বক্তব্যে এক পর্যায়ে স্বপন ভট্টাচার্য্য সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন ”মণিরামপুরে সরকারের উন্নয়নে বাঁধা দিচ্ছে সাংবাদিকরা”। এ সময় অত্যন্ত ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি তথাকথিত এবং অর্বাচিন সাংবাদিক নামে আখ্যা দেন সাংবাদিকদের।সভা শেষে প্রতিমন্ত্রী বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন। এসময় প্রেসক্লাবের সাধারন সস্পাদক মোতাহার হোসেনসহ অন্যান্য সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ প্রতিমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন তাদের স্টল পরিদর্শনের জন্য। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে এ সময় প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিক নেতৃবৃন্দকে গালমন্দ করে বলেন, নিউজ করে যেমন বালু উত্তোলন বন্ধ করেছো, তেমনি নিউজ করে উন্নয়ন কাজও বন্ধ করে দাও। এ সময় তার আচরনে উপস্থিত সকলই হতবাক হয়ে পড়েন।
অপরদিকে সহকারি কমিশনার(ভূমি) পলাশ কুমার দেবনাথ একটি তুচ্ছ বিষয় নিয়ে সাংবাদিক হারুন অর রশিদের সাথে অহেতুক দূর্ব্যবহার করে একটি পত্রিকার নাম উচ্চারনসহ বিদ্রুপ করেন।

 

ফলে এ ব্যাপারে করনীয় সম্পর্কে মনিরামপুর প্রেসক্লাবে গত শনিবার নির্বাহী পরিষদ এবং সোমবার সাধারন পরিষদের জরুরী সভা আহবান করা হয়। প্রেসক্লাব সভাপতি ফারুক আহম্মদের সভাপতিত্বে সকল ১০ টা থেকে বলা দুইটা পর্যন্ত জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক মোতাহার হোসেন জানান, নির্বাহী এবং সাধারন পরিষদের জরুরী সভায় সর্ব সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে পরবর্তি নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এখন থেকে মনিরামপুরে প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এবং সহকারি কমিশনার(ভূমি) পলাশ দেব নাথের সকল অনুষ্ঠান বয়কট করা এবং ইতিবাচক সংবাদ পরিবেশন না করার।
তবে সহকারি কমিশনার(ভূমি) পলাশ কুমার দেবনাথ বলেন, সাংবাদিক হারুনের সাথে তার একটু ভুলবোঝাবোঝি হয়েছে মাত্র। উল্লেখ্য ঝাপা বাওড়ে দুই যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন সম্পর্কে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হবার পর জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের নির্দেশে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসান তা বন্ধ করে দেন। মুলত: তার পর থেকে প্রতিমন্ত্রী স্থানীয় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে তেলে বেগুনে জ্বলে উঠেন।

আরো পড়ুন