ভোলার চরফ্যাশনে ত্রানের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

ভোলার চরফ্যাশনে একটি প্রতারক চক্র ত্রান বিতরণ কর্মসূচির নাম করে বিভিন্ন ইউনিয়নে চাঁদাবাজির করার অভিযোগ উঠছে। চক্রটি চরফ্যাশন উপজেলা যুবদলের ব্যানার ব্যবহার করে বিভিন্ন ইউনিয়নে ব্যাপক চাঁদাবাজি করছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

নাম পরিচয় গোপন রাখার সর্তে একাধিক ব্যক্তি জানান, তাদেরকে উপজেলা যুবদলের এক নেতা ফোন করে সিলেটে ত্রান বিতরণ করা হবে বলে বিভিন্ন ইউনিয়নের লোকজনের কাছ থেকে চাঁদা তোলার জন্য বলা হয়েছে।

রসুলপুর ইউনিয়ন থেকে একাধিক যুবদলের কর্মী জানান, তাদের কাছে সিলেটে ত্রান বিতরণের কথা বলে রাসেল ফরাজী নামে যুবদলের সাবেক সম্পাদক ফোন করে চরফ্যাশন উপজেলা যুবদলের এক নেতার দোহাই দিয়ে চাঁদা কালেকশন করার জন্য বলেন।

তবে এ বিষয়ে রসুলপুর ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি মো. সালাউদ্দিন মিয়া ও সাধারন সম্পাদক মো. ঈমাম হোসেন রিপন কিছুই জানেননা বলে এ প্রতিনিধিকে জানান।

এ ব্যাপারে চরফ্যাশন উপজেলা জাতীয়তাবাদী যুবদলের আহ্বায়ক প্রার্থী শহিদুল ইসলাম প্রিন্স মহাজন বলেন, দলীয় ভাবে যুবদলের পক্ষ থেকে কোন ধরনের চাঁদা কালেকশনের কোন নির্দেশনা নেই।

তিনি চরফ্যাশন উপজেলা ও বিভিন্ন ইউনিয়নে যুবদল নেতা-কর্মী ও শুভাকাঙ্খিদের প্রতারক চক্র থেকে সাবধান থাকতে বলেছেন। যদি কেউ দলের নামে চাঁদাবাজি করে তাদের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে অভিযোগ দেওয়ার জন্য বলেন।

এ বিষয়ে ভোলা জেলা জাতীয়তাবাদী যুবদলের সভাপতি আলহাজ্ব জামাল উদ্দিন লিটন বলেন, দলীয় ভাবে চাঁদা তোলার কোন নির্দেশনা নেই। কেউ ব্যক্তিগত ভাবে করতে পারে সেটা তার ব্যাপার। দলীয় ভাবে সিলেটে কেন্দ্রীয় যুবদলের পক্ষ থেকে ত্রান বিতরণের জন্য অনেক আগেই ভোলা জেলা যুবদল সহযোগিতা করেছেন।

ভোলা জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক হারুন আর রসিদ ট্রুম্যান বলেন, জেলা বিএনপি পক্ষ থেকে উপজেলা ও পৌরসভা সভাপতি / সম্পাদকদের কাছে বন্যা দূর্গত এলাকায় ত্রান বিতরণের জন্য সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। তবে কোন অঙ্গ-সংগঠনের কাছে নয়।
তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত রাসেল ফরাজী চাঁদা তোলার কথা অস্বীকার করেন।

আরো পড়ুন