বস্ত্র বিতরণে বৃদ্ধকে কাদের মির্জার ঘুষি মারার ভিডিও ভাইরাল

মোঃ ইমাম উদ্দিন সুমন, স্টাফ রিপোর্টারঃ

এবার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার এক অসহায় বৃদ্ধকে ঘুষি মারার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়েছে।

শুক্রবার (১৬ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে ঈদুল আজহা উপলক্ষে গরিব মানুষের মাঝে শাড়ি ও লুঙ্গি বিতরণের সময় ওই বৃদ্ধকে ঘুষি দেন কাদের মির্জা। বর্তমানে বৃদ্ধকে ঘুষি মারার চুম্বক অংশের ১মিনিট ১৪ সেকেন্ডের একটি ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।
এমন আচরণে সামাজিক মাধ্যমে বেশ সমালোচনার মুখে পড়েছেন কাদের মির্জা।

ফেসবুকে রফিকুন বিন তাহের নামে একটি আইডি থেকে লেখা হয়েছে, আমাদের রাষ্ট্র নায়করা কোথায়? উনারা কি এই ভিডিও ক্লিপ গুলো দেখেন না। মারওয়ান আল মাংকি নামে একটি আইডি থেকে লেখা হয়েছে, জুলুমের মাত্রা বেড়ে গেলেই এমন হয়।এদের ধ্বংস অনিবার্য। খালেদ সাইফুল্যাহ নামে একটি আইডি থেকে লেখা হয়েছে, অহংকার পতনের মূল” কথাটা কালে কালে সত্যে রুপান্তরিত হয়েছে, হবে। ডা.হামিদুর রহমান নামে একটি আইডি থেকে লেখা হয়েছে, ভাই আপনার একজন ভক্ত আমি আপনার অনেক প্রশংসা করি। কিন্তু আজ বুড়া লোকটার সাথে যে ব্যবহার করেছেন তা সারা পৃথিবীসহ সকলে দেখেছে। সবাই কিন্তু খারাপ বলছে, অল্প থেকেই অনেক বড় হোয়ে যায়,(ধৈর্য ধরুন)। রাসেল নোয়াখালী আইডি থেকে লেখা হয়েছে,মানুষকে দোষারোপ করার আগে তাদের দোষারোপ করো যারা যত্রতত্র লাইভ দেয়। একটা জিনিস বিতরণ করতে ধৈর্য হারা হয় অনেকে। যদি লাইভ না থাকতো তাহলে এই ইস্যু হোতনা । অভি ও স্বপন দায়ী এটার জন্য

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকালে পৌর ভবনের নিচে এবং ওপরে কাদের মির্জা পর্যায়ক্রমে ঈদুল আজহা উপলক্ষে লাড়ি-লুঙ্গি বিতরণ করেন। বিপত্তি বাধে পৌরসভার নিচে শাড়ি বিতরণ কালে এক বৃদ্ধের হাতে একটি শাড়ি তুলে দেন কাদের মির্জা। বৃদ্ধ শাড়িটি পরিবর্তন করতে চাইলে কাদের মির্জা তার বুকে ঘুষি মেরে তাকে সরিয়ে দেন। এ সময় কাদের মির্জার অনুসারীরা শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণ অনুষ্ঠানটি ফেসবুকে লাইভ করছিল। অল্প কিছুক্ষণের মধ্যে বৃদ্ধকে ঘুষি মারারা ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে জানতে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহনও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র গত ৭ মাস ধরে আ.লীগের জাতীয় নেতা, আ.লীগের স্থানীয় নেতাদেরকে নিয়ে তীর্যক মন্তব্য করে ব্যাপক আলোচনায় আসেন। কাদের মির্জা জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত হয়নি বলেও মন্তব্য করেন। ইতিমধ্যে ঘরে বাইরে সর্ব ক্ষেত্রে তীর্যক মন্তব্য করে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে তার একটি পরিচিতি এসেছে।

আরো পড়ুন