দুই নারী সংবাদকর্মী আবারো প্রমান করলেন সাংবাদিকতা অন্যায় বিরুদ্ধে সত্যের কলম সৈনিক

স্টাফ রিপোর্টার:

গত ৯-২-২০২১ তারিখ নিখোঁজ হয় যশোরের নাবালিকা হিন্দু পরিবারের মেয়ে ছন্দারানী বিশ্বাস৷ নিখোঁজ হওয়ার পরে নাবালিকা মেয়ের (বয়স১৫বছর) পরিবার তাকে খোঁজাখুজি করে না পেয়ে অবশেষে যশোর থানায় জিডি করেন৷ তাতেও কোন সুফল না মেলায় হতাশায় দিন কাটতে থাকে পরিবারটির৷ অবশেষে একজন সংবাদকর্মীর ভাইয়ের সাথে নাবালিকা মেয়ের ভাইয়ের সাথে পরিচয় ঘটে৷ এরই সূত্র ধরে সংবাদকর্মী রণিকা বসু (মাধুরী) ও তার সহকর্মী তাসনিম ইসলাম মাহি বিষয়টি জানতে পারেন৷
বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে সংবাকর্মী দুজন শুরু করেন তদন্ত৷ তদন্তের এক পর্যায়ে মেয়ের ফোন নাম্বার ট্যাগ করে লোকেশন বের করেন৷ তারই সুত্র ধরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নিখোঁজ হওয়ার ছয়দিনের মধ্যে বাগেরহাটের গজালিয়া গ্রামের মোঃ আলামিন পাইক নামের একজন নাবালক (বয়স১৮) মুসলমান ছেলের বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করেন দুই সংবাদকর্মী৷

উদ্ধার করার পরে তার কাছ থেকে জানতে পারেন মেয়েটিকে মুসলমান বানানো হয়েছে এবং কোর্টে গিয়ে বিয়ে করেছেন নাবালক মুসলাম ছেলে মোঃ আলামিন পাইক৷ আর এই কাজে সহযোগিতা করেছেন ছেলের বাবা মোঃ তোরাব আলি পাইক৷ সংবাদকর্মী এ বিষয় মেয়ের পরিবারকে জানান৷ তারপর মেয়ের পরিবারের লোক ও মেয়ের এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিদের বাগেরহাটের গজালিয়া গ্রামে নিয়ে আসেন৷ তারপর গজালিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান এস.এম. নাছির উদ্দিনকে জানানো হয়৷ এরই পরিপেক্ষিতে গত ১৫ তারিখ রাতে গ্রাম আদালতের মাধ্যমে চেয়াম্যানের উপস্থিতে মেয়েকে তার বাবা, ভাই ও স্থানীয় লোকজনের হাতে তুলে দেওয়া হয়৷

সংবাদকর্মী রণিকা বসু(মাধুরী) ও তার সহকর্মী তাসনিম ইসলাম মাহির এই নিরলস, নিস্বার্থক কাজকে সাধুবাদ জানান স্থানীয় সকল মানুষ ও ভুক্তভুগি পরিবার৷ সাংবাদিকরা সমাজের দর্পন ,সমাজের বিবেক, আবারো প্রমান দিলেন এই দুই উদিয়মান তরুন সংবাদকর্মী৷ সংবাদকর্মী দুজন বলেন আমাদের জন্য দোয়া করবেন আমরা যেন সমাজের অসংতি, অন্যায়ের বিরুদ্ধে সত্যের কলম চালিয়ে দেশ ও জাতীর উন্নয়ন করে যেতে পারি৷

আরো পড়ুন