জরুরি স্বাস্থ্য সেবায় সংশ্লিষ্ট সকলকে কার্ড ব্যবহারের নির্দেশ-

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বৈশ্বিক মহামারী করোনার সুনামি মোকাবেলায় সম্মূখ সারীর যুদ্ধা হিসাবে কাজ করছেন ডাক্তার,নার্সসহ চিকিৎসার সাথে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।আর মাঠ পর্যায়ে করোনার বিস্তাররোধে জনসচেতনতা, যানবাহনের চলাচলে নিয়ন্ত্রণ ও মাস্ক ব্যবহারে উদ্ধুদ্ধকরণের কাজ করছে বাংলাদেশের সকল জেলার জেলা কমিটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলেই।
দেশের এই ক্রান্তিকালে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কেউ প্রত্যক্ষভাবে কাজ করছে, কেউ পরোক্ষভাবে এবং সকলের কাজের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য এক ও অভিন্ন।

গতকাল ছিল সর্বাত্মক লকডাউনের ৫ম দিন এবং এইদিনও সারাদেশের ন্যায় রাজধানীর এলিফেন্ট রোডে কাজ করছিলেন পুলিশ প্রশাসন ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।নিয়মের জন্য গাড়ি থামিয়ে পরিচয় পত্র দেখতে চান জনৈক পুলিশ সদস্য। গাড়িতে ইউনিফর্ম পরিহিত ব্যক্তি নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দেন এবং কাছে আইডি কার্ড নেই বলে জানান।

কিন্তু কথার উত্তেজনা এতোটাই ছড়ায় যে শেষ পর্যন্ত জনৈক ডাক্তার শওকত আলী বীর বিক্রমের মেয়ে সাইদা শওকত, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সাথেও বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন।তিনি এতোটাই উত্তেজিত হয়ে পড়েন যে নিজের পরিচয় ছাড়িয়ে মুক্তিযোদ্ধা বাবার পরিচয় দেন।এমনকি একজন আরেক জনের পেশা নিয়েও টানাটানি শুরু করে দেন। সেই ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।জানিনা ভিডিওটি জাতির সামনে কি ম্যাসেজ দিচ্ছে?

কিন্তু আমরা সকলেই পাঠ্য বইয়ে পড়েছি কোন পেশাই ছোট নয়।কারো পেশা নয় তার কাজটাকে সম্মান কর।

আর এই অনাঙ্ক্ষিত ঘটনার পর ১৯ এপ্রিল-২০২১ রোজ সোমবার লকডাউনে জরুরি সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের আইডি কার্ড ব্যবহারে নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

উল্লেখ্য ইতিপূর্বে একটি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে জানানো হয় ডাক্তার, নার্স,সাংবাদিকসহ কিছু পেশার লোকের চলাচলের জন্য মুভমেন্ট পাস লাগবে না।

আরো পড়ুন