ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে চট্রগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের র‍্যালি

নিজস্ব প্রতিনিধি

দীর্ঘ প্রায় সাত বছর পর চট্রগ্রাম মহানগর ছাত্রদল বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় তাদের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কর্মসূচি পালন করলো। ২০১৩ সালে গাজী সিরাজ উল্লাহ ও বেলায়েত হোসেন বুলুকে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়ার পর ছাত্রদল মূলত পথ হারায়। অর্ধযুগের বেশী সময় ছাত্রদল এমন গোছানো কর্মসূচি পালন করতে পরেনি বলে জানান তাদের নেতৃবৃন্দ।

মহানগর ছাত্রদলের আহ্বায়ক সাইফুল আলম  বলেন, ‘মোশাররফ হোসেন দীপ্তি ও আহমদুল আলম চৌধুরী রাসেলের পরের ছাত্রদল এমন কর্মসূচি দেখাতে পারেনি। দল আমাদের ওপর আস্থা রেখে দায়িত্ব দিয়েছে, আমরা চেষ্টা করছি সবাইকে মাঠে সক্রিয় করতে’।

মহানগর ছাত্রদলের সদস্য সচিব শরিফুল ইসলাম তুহিন বলেন, নেতৃত্ব দুর্বলতার কারণে ছাত্রদল এতদিন কাজির দেউড়ী থেকে পার্টি অফিস পর্যন্ত সীমাবদ্ধ ছিল। আমরা ছাত্রদলের প্রতিটি নেতাকর্মীকে পড়ার টেবিলের পাশাপাশি রাজপথে সক্রিয় রাখবো।

নতুন কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ফখরুল ইসলাম শাহীন বলেন, অছাত্রদের হাত থেকে ছাত্রদের হাতে ছাত্রদলের নেতৃত্ব আসার সুফল হলো প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর এই বর্ণ্যাঢ্য শোভাযাত্রা। নতুন আহ্বায়ক কমিটিতে আস্থা রেখে প্রতিটি থানা-ওয়ার্ড থেকে নেতাকর্মীরা স্বতস্ফুর্তভাবে কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণ করেছে।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান বলেন, ছাত্রদলের শোভাযাত্রা দেখে আমি আমার ছাত্রজীবনের দিনগুলোতে ফিরে গেলাম। অনেক দিন পর ছাত্রদল আমাদের মন ভরিয়ে দিয়েছে। আমরা তেজদীপ্ত ছাত্র নেতৃত্ব চাই। ছাত্রদের হাত ধরেই দেশের সব পরিবর্তন এসেছে।

প্রসঙ্গত, ১ জানুয়ারি ছিল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ৪২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে কেন্দ্রীয় সংসদের নেতৃবৃন্দ ভার্চুয়ালি সব ইউনিট নেতাদের সাথে বৈঠক করেন। ২ জানুয়ারি সারা দেশে শোভাযাত্রার কর্মসূচি ঘোষণা করে। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম নগর ছাত্রদলের নব গঠিত আহ্বায়ক কমিটির আহ্ববায়ক মো. সাইফুল আলম ও সদস্য সচিব শরিফুল ইসলাম তুহিনের নেতৃত্বে শোভাযাত্রা বের করে।

শোভাযাত্রা ষোলশহর রেল স্টেশন থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে দৈনিক পূর্বকোণ কার্যালয়ের সামনে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সামাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

মো. সাইফুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশ সঞ্চালনা করেন শরিফুল ইসলাম তুহিন। এসময় যুগ্ম আহ্বায়ক আসিফ চৌধুরী লিমন, জিএম সালাউদ্দিন কাদের আসাদ, আরিফুর রহমান (মাস্টার আরিফ), জহির উদ্দিন বাবর, আরিফুর রহমান মিঠু, শহিদুল ইসলাম সুমন, সাব্বির আহমেদ, এমএ হাসান বাপ্পা, রাজিবুল হক বাপ্পি, মাহমুদুর রহমান বাবু, ইসমাইল হোসেন, মোহাম্মদ আনাস, জাহিদ হোসেন খান জসি, নূর নবী (মহররম), নুর জাফর নাঈম রাহুল ও ফখরুল ইসলাম শাহীন বক্তব্য রাখেন।

আরো পড়ুন