চর পাতিলায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ৷

আমিনুল ইসলাম, চরফ্যাশন প্রতিনিধি৷৷

চরফ্যাশন উপজেলার বিচ্ছিন্ন চর কুকরি মুকরি ইউনিয়নের চর পাতিলায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষের মাঝে বিভিন্ন দপ্তরের ত্রাণ বিতরণ করেন ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আবুল হাসেম মহাজন৷

সোমবার (৩১ মে) দিনব্যাপী প্রায় ৫শত পরিবারের মাঝে জেলা প্রশাসন থেকে ৫টন চাল, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর থেকে বিভিন্ন খাবার সামগ্রীর প্যাকেজ, ইউনিসেফ থেকে বালতি, কন্টিনার এবং ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম মহাজন এর নিজ উদ্যোগে শাড়ি, শুকনা খাবার ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়৷

সরেজমিনে দেখা যায়, ঘূর্ণিঝড় ইয়াস এর
পরবর্তীতে চর পাতিলার মানুষ চরম দুর্ভোগে রয়েছে। লবনাক্ত জোয়ারের পানিতে চার দিন ডুবে থাকার পর কতদিনে তাদের জীবনমান স্বাভাবিক হবে তা বলতে পারছেনা কেউ৷ ঘরবাড়ি, চলাচলের রাস্তা, মাছের ঘের, সবজির খামার, গৃহপালিত পশু কোনটাই ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পায়নি৷ দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির অভাব৷ পানি বাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে এই এলাকার মানুষ৷ মারা যাচ্ছে গরু, মহিষ, ছাগল সহ বনের বিভিন্ন প্রাণি৷

কুকরি মুকরি ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম মহাজন বলেন, আমার এলাকাটি বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী হওয়ায় ঘূর্ণিঝড়ের ফলে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাস এবং বর্ষা মৌসুমের ভরা জোয়ারে গ্রাম তলিয়ে যায়৷ তবে এবারের ঘূর্ণিঝড় ইয়াস এর প্রভাবে যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এমনটা অন্য যেকোনো দূর্যোগের চেয়ে অনেকাংশে বেশি৷ বিভিন্ন দপ্তর থেকে যে ত্রাণ সামগ্রী পেয়েছি তা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর মাঝে সমান ভাবে বিতরণ করা হয়েছে৷ তিনি প্রাণী সম্পদ বিভাগের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, এমন দূর্যোগে তাদেরকে একাধিকবার বলার পরেও মাঠে কোন তৎপরতা নেই৷

আরো পড়ুন