চরফ্যাশনে ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে জখম! আটক স্কুল শিক্ষক

আমিনুল ইসলাম, চরফ্যাশন প্রতিনিধি৷৷

জমি বিরোধের জের ধরে চরফ্যাশন উপজেলার জিন্নাগড় ইউনিয়ন ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হাবিবুল্লাহ দুলালকে কুপিয়ে জখম করেছেন সন্ত্রাসী বাহিনী৷ এ ঘটনায় স্কুল শিক্ষক মিজান মাষ্টারকে আটক করেছেন চরফ্যাশন থানা পুলিশ৷

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) বিকাল ৫টার সময় জিন্নাগড় ইউনিয়ন ৭নং ওয়ার্ড কাশেমগঞ্জ বাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে৷ দুলাল মেম্বার বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামি করে চরফ্যাশন থানায় মামলা দায়ের করেছেন৷

জানা যায়, কাশেমগঞ্জ বাজারে অবস্থিত নিজস্ব মার্কেটে মিস্ত্রি দিয়ে মেরামতের কাজ করাচ্ছিলেন দুলাল মেম্বার৷ এসময় দক্ষিণ আইচা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মিজান মাষ্টার ১০/১২ জন সন্ত্রাসী নিয়ে মেম্বার দুলালের উপর অতর্কিত হামলা চালায়৷ হামলায় দুলাল মেম্বার অজ্ঞান হয়ে পড়লে মিজান মাষ্টার দেশীয় গাছ কাটার চেনী দিয়ে মেম্বার দুলালের ডান হাতের কনিষ্ঠ আঙ্গুল কেটে ফেলে৷ পরে মিস্তিরিদের ডাক চিৎকারে বাজারে থাকা পথচারীরা মেম্বার দুলাল কে উদ্ধার করে চরফ্যাসন হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য দুলাল মেম্বারকে বরিশাল শেরে-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে৷

দুলাল মেম্বারের ভাই ইকবাল হোসেন বলেন, আমার ভাইকে নির্মম ভাবে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে হাতের কনিষ্ঠ আঙ্গুল কেটে দিয়েছে প্রতিপক্ষ একই এলাকার মিজান মাষ্টার, মতিন এবং জুয়েল সহ ১০/১২ জনের সংঘবদ্ধ চক্র। এ ঘটনায় ৪ জনকে আসামি করে চরফ্যাশন থানায় মামলা দায়ের করেছেন বলে ইকবাল জানিয়েছেন৷

চরফ্যাসন হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাক্তার এনামুল হাসান জানান, আঙ্গুলের তিনটি পার্টের একটি পার্ট কেটে ফেলেছে এবং বাকী ক্ষতিগ্রস্ত অংশে ১২ ঘন্টার মধ্যে আঙ্গুলের উপরের অংশটি কেটে ক্যাপ পরাতে হবে।

এ বিষয় সম্পর্কে জানার জন্য মিজান মাষ্টারের মুঠো ফোনে ফোন করলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ফোন কেটে বন্ধ করে রাখেন৷ রাতে চরফ্যাশন থানা অফিসার ইনচার্জ জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে মামলার প্রধান আসামি মিজান মাষ্টারকে আটক করা হয়েছে৷ বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে৷

আরো পড়ুন