গৌরীপুরে সংযোগ সড়ক নেই, বেকার হয়ে পড়ে আছে সেতুটি।

তাপস কর,ময়মনসিংহ প্রতিনিধি।

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে সংযোগ সড়ক না থাকায় ৩ বছর পূর্বে নির্মিত একটি সেতু পরিত্যক্ত অবস্থায় দিগম্বর পড়ে রয়েছে। সেতুটি জনসাধারণের কোনও কাজে আসছে না। সেতুটির সংযোগ ও মূলসড়ক না থাকায় এলাকাবাসীর দুর্ভোগ চরমে।
জানা যায়, গৌরীপুর উপজেলার ডৌহাখলা ইউনিয়নের চরঘোড়ামারা এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের সংযোগ খালের উপর দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের সেতু-কালভার্ট কর্মসূচির আওতায় ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২৪ লাখ ৩৫ হাজার টাকা ব্যায়ে সেতুটি নির্মাণ করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অধিদপ্তর।
প্রকল্পটির নাম সাহেব কাচারীবাজার থেকে উত্তর ঘোড়ামারা খালের ওপর এম.এ জলিল প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ৩২ ফুট দীর্ঘ সেতু নির্মাণ।
ডৌহাখলা ইউনিয়নের নিকুরিয়ারচর এলকার বাসিন্দা কবির হোসেন জানান, বর্ষার সময় পানি বাড়ার সাথে সাথে খালের পাড় তলিয়ে যায়। আর শুকনো মৌসুমেও সড়ক না থাকায় চলাচল করা যায়না। সেতুটির পূর্বপাশে ময়মনসিংহ সদর উপজেলার চরনিলক্ষীয়া ইউনিয়ন আর পশ্চিম পাশে গৌরীপুর উপজেলার ডৌহাখলা ইউনিয়নের চরঘোড়ামারা গ্রাম ।
গ্রামবাসীর দাবী, সেতুর অপর পাশের সড়কটি নির্মিত হলে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে যাতায়াতে এলাকাবাসীর সুবিধা হতো।
নিকুরিয়ারচরের আরফান আলী জানান, সেতুতে কোনো সংযোগ সড়ক নেই। এই এলাকার প্রায় আড়াই শতাধিক’ পরিবারের বর্ষা মৌসুমে চলাচলে চরম বিঘ্ন ঘটে। বর্তমানেও হাঁটা ছাড়া চলার কোনো পথ নেই। খাল ঘেঁষে এম.এ জলিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। সংযোগ সড়কের অভাবে শিশু শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
ময়মনসিংহ সদর উপজেলার চরনিলক্ষীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুকুল ইসলাম রতন জানান, সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে আশ্বাস দেন তিনি।
ডৌহাখলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল হক সরকার বলেন, বরাদ্দ আসলে তখন হয়তো সড়ক নির্মাণ কাজ শুরু হবে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সোহেল রানাবলেন, নির্মীত সেতুটির অবস্থান গৌরীপুর উপজেলায়। আর সড়কটি ময়মনসিংহ সদর উপজেলার। সড়ক নির্মাণের জন্য বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে।

আরো পড়ুন