ওড়িশাতে করোনা ভ্যেকসিন দেওয়া চলছে জোর কদমে!

ইন্ডিয়া প্রতিনিধিঃজয় কুমার রায়:

২২জুলায় ২০২১তাঃ ভ্যকসিন দেওয়া চলছে সোনাপুর উলুন্ডা থানার শিন্ডুল সাস্থকপেক্সে সবার জন্য বিনা মূল্যে দেওয়া হচ্ছে।
ভ্যকসিন নিতে যাওয়া একটা উৎসবে যাওর মতো করে যাচ্ছে সাধারন মানুষের কাছে। আগে কিছুটা ভয় মানুষের মনে আরও কিছু অপ প্রচারের ফলে। কোভিড ভ্যাকসিন নেওয়ার পর অবাক কাণ্ড। দেহে আটকে যাচ্ছে লোহার বস্তু! শরীরটাই যেন এক আস্ত চুম্বকে রূপান্তরিত হয়েছে। এমনটাই দেখা গেল শিলিগুড়ি, আসানসোল ও নদিয়ার পলাশিপাড় থেকে। এনিয়ে শুরু হয়েছে চরম চাঞ্চল্য। এর আগে মহারাষ্ট্রে দেখা গিয়েছে এমনটা। তবে ডাক্তারদের ভিন্ন মত, তাঁদের কথায় ভ্যাকসিন নেওয়ার পর এমনটা ঘটতে পারে না। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে, জ্বর, সাময়িক মাথা ব্যাথা, বমি বমি ভাব, ঝিমুনি আসতে পারে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে যাদের জ্বর আসছে না, তাদের কী অবস্থা? তাদের শরীরে কি কাজ করছে না ভ্যাকসিন?

ভ্যাকসিন নেওয়ার পর প্রতি ১০ জনের মধ্যে ১ জনের একইরকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। দেখা গিয়েছে ভ্যাকসিন নেওয়ার পর প্রায় ৫০ শতাংশের শরীরে কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। কিন্তু তাদের শরীরেও ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করার জন্য ইমিউনিটি তৈরি হচ্ছে।

 

প্রত্যেকের শরীর এক নয়। তাই এই একই যাত্রায় পৃথক ফল হবে। শরীরিকভাবে প্রতিক্রিয়া এক হয় না। ভ্যাকসিন নেওয়ার পর এক এক জনের শরীর এক এক রকম প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করছে।

 

 

যখন আপনি ভ্যাকসিন নেবেন, তারপর ভ্যাকসিন আপনার ইমিউন সিস্টেমের উপর প্রভাব ফেলবে। যাঁদের কোভিড হয়ে গিয়েছে, তাঁরা যদি ভ্যাকসিন নেন, সেক্ষেত্রে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অন্যরকম হবে

 

মূলত স্বাস্থ্য, বয়স, লিঙ্গ ভেদে প্রতিক্রিয়া দেখা দিচ্ছে। কারও বেশি তো কারও কম। কার শরীরে ইমিউনিটি কেমন, বা কারও শরীরে জিন গত কোনও সমস্যা থাকলে, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ভিন্ন হচ্ছে। সুতরাং, কারও শরীরে ভ্যাকসিন নেওয়ার পর যদি জ্বর না আসে তাহলেও ভয় পাওয়ার কিছু নেই।

আরো পড়ুন